পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা তিন স্তরে আয়োজন করা হবে। সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে আলাদাভাবে ভর্তি পরীক্ষার আয়োজন করবে।

আগামী সেপ্টেম্বরে আবেদন কার্যক্রম শুরু করা হতে পারে বলে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) সূত্রে জানা গেছে।

ইউজিসি সূত্রে জানা যায়, চলতি বছর (২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষ) থেকে দেশের সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে একযোগে কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

বিজ্ঞান ও প্রকৌশলী এবং কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে একদিন করে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হবে। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষকদের নিয়ে আলাদা দুটি কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করা হবে। এসব কমিটির একাধিক উপকমিটি থাকবে। সেসব কমিটি আবেদন, ভর্তি পরীক্ষা, খাতা মূল্যায়ন ও ফলাফল প্রকাশ কার্যক্রম করে কেন্দ্রীয় কমিটির হাতে তুলে দেবে। কেন্দ্রীয় কমিটি সকল কার্যক্রম মনিটরিং করবে।

তবে সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে অভিজ্ঞ এবং সিনিয়র শিক্ষকদের নিয়ে কলা, বিজ্ঞান ও বাণিজ্য শাখার জন্য পৃথক পৃথক তিনটি কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটি গঠন করা হবে। এ তিন শাখায় তিনদিন পৃথক পৃথক ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হবে। ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির কাজ শেষ হবে।

জানা গেছে, পরবর্তী সময়ে প্রত্যেক বিশ্ববিদ্যালয় প্রচলিত পদ্ধতিতে (কিংবা যেভাবে তারা উপযুক্ত মনে করেন) তাদের নিজ নিজ প্রয়োজনীয় শর্ত সংযোজন করে পৃথক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে। নতুন করে আর পরীক্ষা না নিয়ে কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষায় পাওয়া স্কোরকে বিবেচনা করেই শিক্ষার্থী ভর্তি করবে।

প্রত্যেক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়েই ভর্তি পরীক্ষার কেন্দ্র থাকবে। শিক্ষার্থীরা তাদের পছন্দ অনুযায়ী অভিন্ন প্রশ্নে পছন্দ করা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে পরীক্ষা দেবে। কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে যদি তাদের পরীক্ষা নেওয়ার সামর্থ্যের অতিরিক্ত আবেদন পাওয়া যায়, সেক্ষেত্রে মেধাক্রমানুযায়ী নিকটতম বিশ্ববিদ্যালয়ে তার পরীক্ষা নেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল ভর্তি কমিটি ভর্তির জন্য প্রয়োজনীয় শর্ত আরোপ করার সুযোগ পাবে।

বিশেষায়িত বিভাগগুলো যেমন- স্থাপত্য, চারুকলা ও সংগীত তাদের প্রয়োজনমত শুধুমাত্র ব্যবহারিক পরীক্ষা নিতে পারবে। তবে সেক্ষেত্রেও কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষার স্কোর সংযুক্ত করেই মেধাতালিকা তৈরি করা হবে।

এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েটসহ চারটি বিশ্ববিদ্যালয় নতুন পদ্ধতি নিয়ে এখন আর সরাসরি দ্বিমত করছে না। তবে নতুন পদ্ধতিতে এ বছর শিক্ষার্থী ভর্তি করানোর বিষয়ে চূড়ান্ত কথা এখনো দেয়নি তারা।

গতকাল বুধবার ইউজিসিতে আয়োজিত এক বৈঠকে এ বিষয়ে একমত পোষণ করলেও চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্যরা সভা করে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানানো হয়েছে।

এ কারণে কেন্দ্রীয় ভর্তি প্রক্রিয়ায় উল্লেখিত চার বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশগ্রহণ নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়ে গেছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here