‘২ হাজার নারী উদ্যোক্তা পাবেন ৫০ হাজার টাকা করে সিডমানি’

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, নারী উদ্যোক্তাদের স্বনির্ভর করতে মুজিববর্ষ উপলক্ষে উইমেন এন্ড ইকমার্স ও ই-ক্যাবসহ ২ হাজার নারী উদ্যোক্তাকে ৫০ হাজার টাকা করে সিডমানি দেয়া হবে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আইডিয়া প্রকল্প হতে জামানত ছাড়াই নন রিফান্ডএবল সিড মানি হিসেবে এ অর্থ প্রদান করা হবে।

প্রতিমন্ত্রী সোমবার (১৫ মার্চ) আন্তর্জাতিক নারী দিবস-২০২১ উদ্যাপন উপলক্ষ্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধীন এসপায়ার টু ইনোভেশন (এটূআই) এর উদ্যোগে অনলাইন প্লাটফর্মে আয়োজিত ‘Women in Digital: Employment & Entrepreneurship’ শীর্ষক আলোচনা সভায় যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।

পলক বলেন ডিজিটাল স্পেসে নারীদের অংশগ্রহণ বাড়াতে হলে তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি সাইবার স্পেসে নারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সচেতনতা ও প্রযুক্তির ব্যবহারের পাশাপাশি কঠোর আইন প্রয়োগের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, নারী-পুরুষ বিভেদ ও বৈষম্য দূর করতে জনসচেতনতার পাশাপাশি পিতা-মাতা, পারিবারিক ও প্রাতিষ্ঠান থেকেই নৈতিক ও মূল্যবোধের শিক্ষা দিতে হবে । সন্তানদের উদার ও প্রগতিশীল মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী আইসিটি বিভাগ হতে বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হচ্ছে উল্লেখ করে বলেন, ‘হাই-টেক পার্ক সমূহে শতকরা ৩০ ভাগ স্পেস নারী উদ্যোক্তাদের বরাদ্দ দেওয়া হবে। আইসিটি বিভাগ শি-পাওয়ার প্রকল্পের মাধ্যমে নারী উদ্যোক্তা তৈরির লক্ষ্যে কাজ করছে।’

‘এ পর্যন্ত ১০ হাজার ৫০০ জনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ৪২৭ জন নারী উদ্যোক্তা হিসাবে নিজেদেরকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। লার্নিং ও আর্নিং প্রকল্পের মাধ্যমে ৩৮ হাজার জনকে প্রশিক্ষণ দিয়ে ফ্রিল্যান্সার হিসাবে গড়ে তোলা হয়েছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে ২০২১ সালের মধ্যে মোট ৫৩ হাজার মানুষকে প্রশিক্ষিত করা হবে। এছাড়া তরুণ উদ্যোক্তাদেরকে আইসিটি বিভাগের আইডিয়া প্রকল্প হতে ১০ লক্ষ থেকে ৫ কোটি টাকা পর্যন্ত সহযোগিতা করার সুযোগ রয়েছে। দেশের নারী উদ্যোক্তারা সরকারের এই সুযোগগুলো গ্রহণে এগিয়ে আসবেন বলে তিনি আশা করেন।

তথ্য ও যোগাযোগ বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে অনলাইনে যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম, বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক ডক্টর বেনাজির আহমেদ, এটুআই প্রকল্প পরিচালক ড. মো. আব্দুল মান্নান, ইউ এন উইমেন এর বাংলাদেশ প্রতিদিন মিজ শোকো ইশিকাওয়া, এটুআই এর পলিসি এডভাইজার আনীর চৌধুরী, বেসিসি এর সিনিয়র সহ-সভাপতি মিজ ফারহানা এ রহমান, এসবিকে ফাউন্ডেশন এর ফাউন্ডার সোনিয়া বশির কবির প্রমূখ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here