সৌদি আরবে ‘হালাল নাইটক্লাব’ চালুর ঘোষণার পর থেকে সরগরম দেশটির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। বুধবার সৌদি রাজপরিবারের পক্ষ দেশটির জেদ্দা শহরে ‘হালাল নাইটক্লাব’ চালুর ঘোষণা দেয়া হয়। এর পর থেকে সামাজিক মাধ্যমগুলোতে এনিয়ে চলছে কড়া সমালোচনার ঝড়।

অনেক টুইটার ব্যবহারকারীর বরাত দিয়ে আল-জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, সৌদির এমন ক্লাব ঘোষণার পর প্রশংসার চেয়ে সমালোচনার পাল্লাই অনেক ভারি।

টুইটারে অনেকে লিখেছেন, সৌদির এমন কর্মকাণ্ড দেশটির ইসলামিক চিন্তাধারা ও ঐতিহ্যের পরিপন্থী।

আবার কেউ লিখেছেন, হালাল নাইটক্লাবে আসলে কি কি করা যাবে, এটা হাস্যকর।

এছাড়া অনেক সামাজিক ব্যবহারকারী হালাল নাইটক্লাবের ব্যঙ্গ করে অনেক ভিডিও ও ছবি শেয়ার করেছেন।

কেউ কড়া সমালোচনা করে লিখেছেন, এটা ইসলামের সংস্কার নয়, এটা অবক্ষয়। ইসলামের ক্ষতি করে এমন কর্মকাণ্ড আমরা মেনে নিতে পারিনা।

সৌদি রাজপরিবারের পক্ষ থেকে নাইট ক্লাব ঘোষণার পর বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয় ‘হালাল নাইটক্লাবে’ ওয়াটারফ্রন্ট থাকবে, এর সঙ্গে থাকবে বিশ্বের খ্যাতনামা মিউজিক গ্রুপের পরিবেশনা। ইলেক্ট্রনিক ডান্স মিউজিক, কমার্শিয়াল মিউজিক, আরএনবি এবং হিপহপ মিউজিক উপভোগ করা যাবে এখানে।

এই নাইটক্লাবের লাউঞ্জের একটি অংশে থাকবে ড্যান্স ফ্লোর। নারী পুরুষ সবার জন্য এটা উন্মুক্ত থাকবে। হোয়াইটের সব ধরনের সুযোগ সুবিধাই এখানে পাওয়া যাবে। তবে এখানে অ্যালকোহল জাতীয় পানি ও মদ পাওয়া যাবে না।

কারণ সৌদিতে এখনো মদ কেনাবেচা অবৈধ। কেউ যদি মদ কেনাবেচা করে তবে তাকে শাস্তি পেতে হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here