স্কুলের ইট দিয়ে ছাগলের জন্য ঘর করলেন প্রধান শিক্ষক!

যশোরের চৌগাছায় বিদ্যালয়ের নির্মিত ভবনের ইট নিজের বাড়ির কাজে ব্যবহার করছেন এক প্রধান শিক্ষক। এমন অভিযোগ করেছেন উপজেলার মাকাপুর-বল্লভপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অভিভাবক ও এলাকাবাসী। এ নিয়ে স্কুলের শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবকসহ জনসাধারণের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা গেছে, বর্তমান সরকার শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য সরকারি টেন্ডারের মাধ্যমে উপজেলা পর্যায়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ করছে। সরকারের এই উন্নয়নকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন উপজেলার মাকাপুর-বল্লভপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূরুল ইসলাম। সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম তাঁর বাড়িতে ১৭৫ পিস স্কুলের ইট মজুদ করে রেখে দিয়েছেন। সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে তিনি হতভম্ভ হয়ে যান। স্কুলের ইট বাড়িতে কেন এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমি ইট কিনেছি। ইটের ভাউচার দেখতে চাইলে তিনি তা দেখাতে পারেননি। বাড়ির উঠানের বাম পাশে দক্ষিণে নতুন একটি ছাগল রাখার ঘর দেখা যায়। ঘরটির ইটও একই ইট দিয়ে তৈরি। ছাগলের পাকা ঘরের বিষয় জানতে চাইলেও তিনি ক্রয় করা ইট বলে দাবি করেন।

এদিকে এলাকাবাসী অভিযোগ করেন, স্কুলের ইট দিয়ে ওই ছাগল ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সম্পর্কে অনেকে জানান, তিনি শিক্ষকতার আগে পুলিশে চাকরি করতেন। দুর্নীতির অভিযোগে তিনি চাকরি থেকে বরখাস্ত হন। এ ছাড়া ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসের দিন তাকে এয়ারগান দিয়ে পাখি শিকারে বের হতে দেখেন অনেকে। এই ভিডিও এলাকায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। ভিডিওটি দেখে এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করেন। কয়েকজন অভিভাবক অভিযোগ করেন, শিক্ষকসুলভ আচারণ তার মধ্যে দেখা যায় না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্কুলের বহুতল ভবন নির্মাণ কাজের কয়েকজন শ্রমিক জানান, স্যার স্কুলের ইট দিয়ে ওই ছাগল ঘর নির্মাণ করেছে। আমরাই নির্মাণের কাজে ছিলাম। এ ছাড়া যাতে কেউ বুঝতে না পারে সে কারণে পলেস্তারার কাজ করেছি স্যারের নির্দেশে।

স্কুলের সভাপতি ও ভাইস চেয়ারম্যান দেবাশীষ মিশ্র জয় বলেন, স্কুলের ইট যদি অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বাড়িতে পাওয়া যায় তবে আমি তদন্তপূর্বক ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেব। স্কুলের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলামের সঙ্গে কথা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here