শীতের রাতে চাঙ্গা হতে তারুণ্যের আশ্রয়। আড্ডা, সময় কাটানো বা শুধুই হুল্লোড়। ব্যাডমিন্টন ছাড়া যেন শীত জমেই না আজকাল। শীত এলেই তরুণদের তোড়জোড় শুরু হয়ে যায় ব্যাডমিন্টন খেলার। গ্রাম কিংবা শহর_ সবখানেই হিড়িক পড়ে যায় খেলাটির। গ্রামে বড় মাঠেই কোর্ট কেটে শুরু হয় খেলা। কিন্তু শহরে তো তেমন মাঠই নেই। তাতে কি! খেলা তো আর বন্ধ হতে পারে না। তাই পাড়ায় পাড়ায় ব্যাডমিন্টন খেলার কোর্ট কেটে ছেলেমেয়ে, তরুণ, বৃদ্ধ সবাই নেমে পড়ে খেলায়। যেহেতু মাঠের অভাব, তাই রাস্তার মাঝে বা গলির রাস্তায় কোর্ট কেটে চলে খেলার মহোৎসব।

খেলাটির আয়োজনে মূল ভূমিকা পালন করে সাধারণত পাড়ার তরুণরাই। নিজেরাই চাঁদা দিয়ে অথবা চাঁদা উঠিয়ে খুব ধুমধাম করে আয়োজন করে ব্যাডমিন্টন খেলার। এ ক্ষেত্রে সাড়া দেয় এলাকার লোকজনও। চাঁদা দেওয়ার ব্যাপারে থাকে না তেমন কার্পণ্য। কারণ ব্যাডমিন্টন খেলার প্রতি প্রত্যেকেরই রয়েছে অপার ভালোবাসা। এটি এমন এক খেলা, যা খেলতে পছন্দ করে সবাই। ফলে সন্ধ্যা হলেই ভিড় জমে খেলার কোটের সামনে।

এক সঙ্গে এক খেলায় চারজনের বেশি খেলতে পারে না বলে অধিকাংশকেই কোটের পাশে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। অপেক্ষা করতে করতেই এক কোর্টের পাশে তৈরি হয় আরও বেশ কয়েকটি ব্যাডমিন্টন কোর্ট। প্রায়ই দেখা যায় এক কাতারে লাইন ধরে চার-পাঁচটি কোর্ট কাটা হয়েছে। সন্ধ্যার পর খেলা শুরু হয় বলে আলোর প্রয়োজন আবশ্যক। আলোর ব্যবস্থা করতেই পাঁচশ-হাজার ওয়াটের বাল্ব লাগানো হয় কোর্টের পাশে। কেউ কেউ হ্যাজাক লাইটও লাগান। ব্যাডমিন্টন খেলার খরচ খুব বেশি একটা না হলেও কমও নয়। পুরো টাকাটাই এলাকার তরুণরা কোনো একভাবে ব্যবস্থা করে ফেলে।

ব্যাডমিন্টন খেলার ৫ উপকারিতা-

পেশী: নিয়মিত ব্যাডমিন্টন খেললে কাফ পেশী, হ্যামস্ট্রিং সবল হয়।

ক্যালরি: প্রতিদিন ১ ঘণ্টা ব্যাডমিন্টন খেললে ৫০০ ক্যালরি পর্যন্ত ঝরানো যেতে পারে

ফুসফুস: ব্যাডমিন্ট খেললে হার্ট রেট বাড়ে। যা ফুসফুসের কর্মক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

ঘুম: নিয়মিত ব্যাডমিন্টন খেললে ঘুম ভাল হয়। ফলে কাজের মান বাড়ে।

হাড়: ব্যাডমিন্টন পা ও নিতম্বের হাড়ের ঘনত্ব বাড়ায়। ফলে বাত বা হাড় ভঙ্গুর হয়ে যাওয়ার সমস্যা দূরে রাখতে পারে।

খেলার নিয়ম-কানুন-
ব্যাডমিন্টনের কোর্ট : ব্যাডমিন্টনের কোর্ট সমতল আয়তাকৃতির হয়ে থাকে। একক ও দ্বৈত উভয়ক্ষেত্রে যার দৈর্ঘ্য ১৩.৪ মিটার [৪৪ ফুট]। প্রস্থের মাপ বাড়ে দ্বৈতের ক্ষেত্রে। দ্বৈত কোর্টের প্রস্থ ৬.১ মিটার (২০ ফুট), এককে ৫.১৮ মিটার (১৭ ফুট)। নেটের উচ্চতা ১.৫৫ মিটার [পাঁচ ফুট এক ইঞ্চি]।
র‌্যাকেট/ব্যাট : বিডবি্লউএফ [ব্যাডমিন্টন ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন] কর্তৃক নির্ধারিত কিছু মাপ রয়েছে যা আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। এই মাপ অনুযায়ী বিভিন্ন র‌্যাকেট প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান বাণিজ্যিকভাবে র‌্যাকেট উৎপাদন করে থাকে।

একটি র‌্যাকেটের দৈর্ঘ্য সর্বাধিক ৬৮ সেন্টিমিটারের বেশি হবে না এবং প্রস্থ ২৩ সেন্টিমিটারের বেশি হবে না। জাল বোনা মাথার দৈর্ঘ্য সর্বাধিক ২৮ সেন্টিমিটারের বেশি হবে না এবং জাল বোনা মাথার প্রস্থ সর্বাধিক ২২ সেন্টিমিটারের বেশি হবে না। তবে বাস্তব ক্ষেত্রে আধুনিক র‌্যাকেটগুলোর মাপ সর্বোচ্চ মাপের তুলনায় কিছুটা ছোট হয়।

শাটল [কর্ক] : শাটলটির ওজন ৪.৭৪ গ্রামের কম অথবা ৫.৫০ গ্রামের বেশি হবে না। এর মধ্যে ১৪ থেকে ১৬টি পালক থাকবে।

খেলোয়াড় : একক ম্যাচে উভয়পক্ষে ১ জন করে সর্বমোট ২ জন খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করে। দ্বৈত খেলায় উভয়পক্ষে ২ জন করে সর্বমোট ৪ জন অংশগ্রহণ করে।

খেলার নিয়ম ও পয়েন্ট :একক ও দ্বৈত উভয় খেলায় সাধারণত ১৫ থেকে ২১ পয়েন্টে গেম হয়। উভয় খেলোয়াড় বা দল ২০-২০ পয়েন্ট অর্জন করলে সেক্ষেত্রে ২ পয়েন্টের ব্যবধানে এগিয়ে থেকে জয়লাভ করতে হবে, অর্থাৎ ২২-২০, ২৫-২৩ ইত্যাদি।

উভয় দলের পয়েন্ট সমান হওয়াকে ডিউস বলে। মনে রাখতে হবে, এভাবে সর্বোচ্চ ৩০ পয়েন্টের মধ্যে অবশ্যই গেম শেষ করতে হবে। তিনটি গেমের মধ্যে যে বা যে দল দুই খেলায় জিতবে, তারাই বিজয়ী হবে।

একক খেলার সময় সার্ভিসকারীর পয়েন্ট শূন্য বা জোড় সংখ্যা হলে খেলোয়াড় তাদের ডান দিকের কোর্ট থেকে সার্ভিস করবে এবং বেজোড় সংখ্যা হলে বাম দিকের কোর্ট থেকে সার্ভিস করবে। প্রতি পয়েন্টের পর খেলোয়াড়রা তাদের সার্ভিস বা রিসিভ কোট বদল করবে।

দ্বৈত খেলার সময় প্রথম সার্ভিসের জন্য ডানদিকের খেলোয়াড় কোনাকুনি বিপক্ষের কোর্টে সার্ভিস করবে। যাকে সার্ভিস করা হবে কেবল সেই খেলোয়াড় সার্ভিস গ্রহণ করবে। কোনো খেলোয়াড় পরপর দুইবার সার্ভিস করতে পারবে না। প্রথম গেমে বিজয়ী খেলোয়াড় দ্বিতীয় গেমে সার্ভিস শুরু করবে।

সার্ভিসের সময় সার্ভারের দুই পা মাটি স্পর্শ করে থাকবে। সার্ভিস করার সময় শাটল নেটে লেগেও যদি ঠিক কোর্টে পড়ে তবে সার্ভিস ঠিক হয়েছে বলে ধরা হবে। শাটল দাগ স্পর্শ করলেই সার্ভ করা ঠিক হয়েছে বলে ধরা হবে।

নেট অতিক্রম করে কেউ শাটলে আঘাত করতে পারবে না এবং খেলা চলাকালে কেউ র‌্যাকেট বা শরীরের কোনো অংশ দিয়ে নেট ও পোস্ট স্পর্শ করতে পারবে না।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here