মুসলিম-ইহুদিকে এক করেছে করোনাভাইরাস

বিশ্বব্যাপী আতঙ্ক ছড়িয়েছে করোনাভাইরাস। নানা ধরনের উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠায় দিন কাটছে মানুষের। তবে এর মধ্যেও বিশ্বের নানা প্রান্তে ভালো লাগার মতো অনেক ঘটনা ঘটছে। এসব ঘটনা করোনার আতঙ্কের মধ্যেও আমাদের নতুন করে অনুপ্রেরণা দিচ্ছে, সাহস জোগাচ্ছে।

মানবিকতার বেশ কিছু ঘটনা চোখে পড়েছে করোনার সঙ্কট ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে। এই দুর্যোগে একে অন্যের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। খাবার, অর্থ দিয়ে মানুষের সেবায় এগিয়ে আসছে মানুষ।

সম্প্রতি ইসরায়েলে করোনা সঙ্কটে বিরল ঘটনা চোখে পড়ল। করোনা সেখানে মুসলিম এবং ইহুদিকে এক করেছে। পাশাপাশি দাঁড়িয়ে এক ইহুদি ও এক মুসলিমকে নামাজ আদায় করতে দেখা গেছে।

দু’জনেই কাজে বেশ ব্যস্ত ছিলেন। এতটুকু ফুসরত মিলছিল না। আব্রাহাম মিনজ এবং জোহের আবু জামা ইসরায়েলে জরুরি সেবা কাজে নিয়োজিত রয়েছেন। সারাক্ষণই লোকজনকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তারা।

একের পর এক ফোনকল আসে। সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হয়। সন্ধ্যা ছয়টার দিকে একটু অবসর মিলেছিল। মিনজ আর আবু জামা বুঝে নিয়েছিলেন যে এটাই হয়তো আজকের মতো কিছুটা বিরতির সময়। এরপর আবার একের পর এক ফোনকল আসতে থাকবে।

সে কারণে কোনো কিছু না ভেবেই এই সময়টায় নিজেদের প্রার্থনার জন্য কাজে লাগালেন তারা। মিনজ ইহুদি। প্রার্থনার উদ্দেশে জেরুজালেমের দিকে মুখ করে কাঁধে সাদা-কালো শাল জড়িয়ে নিলেন তিনি। শুরু করলেন প্রার্থনা।

অপরদিকে, আবু জামা একজন মুসলিম। তিনি মাটিতে জায়নামাজ বিছিয়ে কাবার দিকে মুখ করে নামাজে দাঁড়ালেন। দু’জন দু্ই ধর্মের হলেও পাশাপাশি দাঁড়িয়েই নামাজ আদায় করলেন। এমন ঘটনা খুব একটা দেখা যায় না। কিন্তু করোনার এই সঙ্কট যেন ধর্মের বিভেদ ভুলিয়ে দিয়েছে।

করোনায় আক্রান্ত বা অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বা জরুরি সহায়তা প্রয়োজন এমন লোকজন সারাদিনই ফোন দিতে থাকেন। আর তাদের সেবা প্রদানকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্বে সঙ্গে নিচ্ছেন আবু জামা এবং মিনজের মতো কর্মীরা। সে কারণে সারাদিন তাদের একটু অবসর মেলে না। এর মধ্যেই একসঙ্গে সময় মতো নামাজ আদায় করেন তারা।

এই দু্ই প্যারামেডিক কর্মীকে সপ্তাহে প্রায় দু’তিন দিন একসঙ্গেই কাজ করতে হয়। এ সময়টায় তারা একসঙ্গেই নামাজ আদায় করেন। অনেকের কাছেই বিশেষ করে ইসরায়েলে ইহুদি এবং মুসলিমের এভাবে একসঙ্গে নামাজ আদায়ের ঘটনা অন্যদের জন্য অনুপ্রেরণামূলক।

তাদেরই এক সহকর্মী তাদের একসঙ্গে নামাজ আদায়ের ছবিটি তুলেছিলেন। মুহূর্তের মধ্যেই তা সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে। ইন্সটাগ্রামে একজন মন্তব্য করেছেন, আমি জরুরি সেবাদানে নিয়োজিত সবাইকে নিয়ে গর্ববোধ করি। তারা কোন সম্প্রদায় বা ধর্ম থেকে এসেছেন সেটা গুরুত্বপূর্ণ না।

টুইটারে একজন লিখেছেন, একই যুদ্ধ, একই বিজয়, চলো সবাই এক হই। এই ছোট্ট একটি ঘটনা সব ধর্মের মানুষের মনে নাড়া দিয়েছে। সিএনএনকে মিনজ বলেন, এই ছোট্ট ঘটনাই প্রকৃতপক্ষে অনেক শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। আমি, আবু জামা এবং বিশ্বের আরও অনেকেই বিশ্বাস করি যে আমাদের হাত তুলতে হবে এবং প্রার্থনা করতে হবে।

অপরদিকে, আবু জামা বলেন, ধর্মীয় বিশ্বাসের জায়গা থেকে আমরা প্রায় একই ধরনের জিনিস বিশ্বাস করি। আমাদের বেশ কিছু বিষয়ে মিল রয়েছে। ইসরায়েলে ইএমটি এবং এমডিএ প্যারামেডিকদের করোনায় আক্রান্তদের হাসপাতালে নেওয়া, করোনার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা, রক্ত সরবরাহসহ বিভিন্ন কাজে নিয়োজিত থাকতে হয়। তারা সারাক্ষণই লোকজনকে আপ্রাণ সেবা দেয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here