মাস্ক ব্যবহারে ৪০ শতাংশ কমতে পারে করোনা সংক্রমণ

শুধু মাস্ক ব্যবহারেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ৪০ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে আনা সম্ভব। সম্প্রতি জার্মানির এক গবেষণায় এ তথ্য জানানো হয়েছে। দেশটিতে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক হওয়া বেশ কিছু শহরের মানুষদের ওপর এ গবেষণা চালানো হয়।

মার্কিন সংবাদমাধ্যমের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ৬ এপ্রিল জার্মানির জেনা শহরে ঘরের বাইরে সবার জন্য মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়। এর কিছুদিন পরেই দেখা যায়, সেখঅনে নতুন করে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২৫ শতাংশ কমে গেছে।

গত শুক্রবার এই গবেষণার ফলাফল প্রকাশ করেছে আইজেডএ ইনস্টিটিউট অব লেবার ইন বন। তারা জানিয়েছে, অঞ্চলভিত্তিক গবেষণায় দেখা গেছে, মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করার ১০ দিনের মধ্যেই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ দশমিক ৩ শতাংশ থেকে ১৩ শতাংশ পর্যন্ত কমে গেছে। এভাবে বেশ কিছু অঞ্চলের তথ্য সংগ্রহ করে দেখা গেছে, শুধু মাস্ক ব্যবহারেই দৈনিক সংক্রমণের হার ৪০ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে আনা সম্ভব।

করোনা প্রতিরোধে মাস্ক পরার পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও (ডব্লিউএইচও)। তারা বলছে, করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে জনসম্মুখে অবশ্যই সবার মাস্ক পরা উচিত।

সংস্থাটি জানিয়েছে, ফেস মাস্ক ‘সম্ভাব্য সংক্রামক ড্রপলেটের’ জন্য বাধা হিসেবে কাজ করতে পারে। একারণে গণপরিবহন, বিপণিবিতান ও শরণার্থী শিবিরের মতো জায়গাগুলোতে অবশ্যই সবার মাস্ক পরা উচিত।

ডব্লিউএইচও বলছে, জনসম্মুখে অবশ্যই কাপড়ের মাস্ক দিয়ে মুখ ঢাকতে হবে, যাতে সংক্রমণের বিস্তার না ঘটে। বিশেষ করে যাদের বয়স ষাটের বেশি কিংবা যাদের স্বাস্থ্যঝুঁকি রয়েছে, তাদের সুরক্ষার জন্য মেডিকেল গ্রেড মাস্ক পরার পরামর্শ দিয়েছে সংস্থাটি।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here