মালয়েশিয়া থেকে মাত্র দুই লাখ টাকা খরচে যেভাবে মাস্টার্স ডিগ্রী নিবেন

দুই থেকে তিন লাখ টাকায় দেশের বাইরে মাস্টার্স বাই রিসার্চ প্রোগ্রাম (বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা এবং সামাজিক বিজ্ঞানের বিষয়গুলো) করা যায় । ইউনিভার্সিটি মালয়েশিয়া তেরেংগানু মালয়েশিয়ার একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। এটি একটি গবেষণাধর্মী বিশ্ববিদ্যালয়।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ে আপনি মাস্টার্স বাই রিসার্চ করতে পারবেন ন্যাচারাল সাইন্স, অ্যাপ্লায়েড সাইন্স, ইঞ্জিনিয়ারিং, ইকোনমিক্স এন্ড বিসনেস এবং সোশ্যাল সায়েন্সের অনেকগুলো বিষয়ে।

মাস্টার্স বাই রিসার্চ ডিগ্রী এখানে মাস্টার অফ সাইন্স ডিগ্রী নামে পরিচিত।

এই ফিল্ডগুলোর অধীনে মাস্টার্স বাই রিসার্চ করার সুযোগ রয়েছে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে –

একুয়াটিক সাইন্স ফিল্ড : একুয়াটিক ইকোলজি , একুয়াটিক টক্সসিওলজি, লিমনোলোজি, ওয়াটার কোয়ালিটি

বায়ো-কেমিস্ট্রি ফিল্ড : এনজাইমোলজি, বায়ো-জিওগ্রাফি, কনসারভেশন জেনেটিক্স

বায়ো-ডাইভারসিটি এন্ড কনসারভেশন : ফরেস্ট ম্যানেজমেন্ট, ওয়াইল্ডলাইফ কনসারভেশন, ওয়াইল্ডলাইফ ম্যানেজমেন্ট

বায়োটেকনোলজি : এনিম্যাল বায়োটেকনোলজি, একুয়াকালচার বায়োটেকনোলজি, বায়ো-ইনফোরম্যাটিক্স, ড্রাগ ডিসকভারি, এনভায়রনমেন্টাল বায়োটেকনোলজি, ইন্ডাস্ট্রিয়াল বায়োটেকনোলজি, মেরিন বায়োটেকনোলজি, মাইক্রোবিয়াল বায়োটেকনোলজি।

বোটানি : ফিকোলোজি, প্লান্ট বায়োলজি এন্ড ট্যাক্সনমি, প্লান্ট ট্যাক্সনমি

সেল এন্ড মলিকুলার বায়োলজি : মলিকুলার ইমমুনোলোজি

ইকোলজি : ফরেস্ট ইকোলজি, পালেওএকলোজি, পপুলেশন ইকোলজি, কোয়ান্টিটেটিভ ইকোলজি

জেনেটিক্স : ব্রিডিং জেনেটিক্স, কম্পারেটিভ জেনেটিক্স, মলিকুলার জেনেটিক্স, রিকম্বিনেন্ট ডি এন এ

মাইক্রোবায়োলজি : ব্র্যাক্টেরিয়োলজি, ইমমুনোলোজি, মিকোলজি, প্রোটোজোয়ালজি, ভিরোলজি

ফিজিওলজি : এনিম্যাল ফিজিওলজি, মাইক্রোবিয়াল ফিজিওলজি, প্লান্ট ফিজিওলজি

জুওলজি : ইনভার্টেব্রাট বায়োলজি এন্ড ট্যাক্সনমি, প্যারাসিটোলোজি, ভার্টেব্রাট বায়োলজি এন্ড ট্যাক্সনমি

কেমিকাল সাইন্সেস : এনালিটিক্যাল কেমিস্ট্রি, এনভায়রনমেন্টাল কেমিস্ট্রি এন্ড পলিউশন, মেটেরিয়াল সাইন্স, ন্যাচারাল প্রোডাক্টস, অলিওকেমিস্ট্রি, পলিমার কেমিস্ট্রি, Surfactant সারফেক্টান্ট কেমিস্ট্রি, ফিজিক্যাল কেমিস্ট্রি।

কেমিকাল টেকনোলজি : কেমিক্যাল প্রসেস, মেমব্রেন টেকনোলজি, পেট্রো-কেমিক্যাল টেকনোলজি

এনভায়রনমেন্টাল টেকনোলজি এন্ড ম্যানেজমেন্ট : এনভায়রনমেন্টাল ম্যানেজমেন্ট, এনভায়রনমেন্টাল সাইন্সেস, এনভায়রনমেন্টাল টেকনোলজি, ম্যাটেরিয়ালস টেকনোলজি।

ফিজিক্স : কমিউনিকেশনস এন্ড সিগন্যাল, প্রসেসিং, ম্যাটেরিয়াল ফিজিক্স, রিনিউএবল এনার্জি,
সলিড স্টেট ফিজিক্স

রিমোট সেন্সিং : জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সিস্টেম, স্যাটেলাইট ওসেনোগ্রাফি

মেরিন সাইন্স : কোস্টাল জোন ম্যানেজমেন্ট, মেরিন বায়োলজি, মেরিন কেমিস্ট্রি, মেরিন পলিউশন, মেরিন টক্সিকোলজি

মেরিটাইম স্টাডিস : মেরিন আরকিটেকনোলজি, মেরিটাইম ল এন্ড পলিসি, মেরিন ম্যানেজমেন্ট, মেরিন ট্রান্সপোর্টেশন, নটিকাল সাইন্স

মেরিন টেকনোলজি : কোরসন টেকনোলজি, মেরিন এনার্জি, মেরিন ফ্লুইড পাওয়ার, মেরিন প্রোপালশন এন্ড পাওয়ার, অফশোর স্ট্রাকচার

ওসেনোগ্রাফি : বায়োলজিক্যাল ওসেনোগ্রাফি, কেমিক্যাল ওসেনোগ্রাফি, কোস্টাল প্রসেস

কম্পিউটার সাইন্স : আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, কম্পিউটার সিস্টেমস, ডাটাবেস, হাই পারফরমেন্স সিস্টেমস, ইমেজ প্রসেসিং, ইনফরমেশন সিস্টেমস, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং

ম্যাথেমেটিক্যাল সাইন্সেস : ডিসিশন সাইন্সেস, ডিফারেনশিয়াল একোয়াশন, ম্যাথেমেটিক্যাল মডেলিং, স্ট্যাটিসটিক্স

এনিম্যাল সাইন্স : এনিম্যাল বায়োটেকনোলজি, এনিম্যাল নিউট্রিশন

ক্রপ সাইন্স : এগ্রোনোমি, ক্রপ বায়োটেকনোলজি, হর্টিকালচার, প্লান্ট জেনেটিক্স, সয়েল সাইন্স

ফিশারিজ : ফিশ বায়োলজি, ফিশ জেনেটিক্স, ফিশারিজ বায়োটেকনোলজি, ফিশারিজ টেকনোলজি

ফুড সাইন্স : ফুড টেকনোলজি, নিউট্রিশন

পোস্ট হারভেস্ট টেকনোলজি : কুলিং এন্ড ফ্রিজিং টেকনোলজি , পোস্ট হারভেস্ট ফিজিওলজি

একাউন্টিং : অডিট, কর্পোরেট গভর্নেন্স, ম্যানেজমেন্ট একাউন্টিং, ট্যাক্সেশন

ইকোনমিক্স : অ্যাপ্লায়েড ইকোনমিক্স, ডেভেলপমেন্ট ইকোনমিক্স, এনভায়রনমেন্টাল ইকোনমিক্স, ইসলামিক ইকোনমিক্স, ন্যাচারাল সাইন্স ইকোনমিক্স

ফিনান্স : ইনভেস্টমেন্ট

ম্যানেজমেন্ট : হিউমান রিসৌর্স ম্যানেজমেন্ট, ইনফরমেশন টেকনোলজি ম্যানেজমেন্ট, অপারেশন্স ম্যানেজমেন্ট

মার্কেটিং : সোশ্যাল মার্কেটিং, সার্ভিস মার্কেটিং, রিটেলিং

অ্যাপ্লায়েড লিঙ্গুয়িস্টিক : ইংলিশ, এরাবিক

কমিউনিকেশন : হিউমান কমিউনিকেশন, অর্গানিজশনাল কমিউনিকেশন

কাউসেলিং : ক্যারিয়ার কাউন্সেলিং, ফ্যামিলি কাউন্সেলিং, প্রসেস কাউন্সেলিং

ফিলোসফি এন্ড সিভিলাইজেশন : কম্পারেটিভ সিভিলাইজেশন এন্ড থটস, হিস্ট্রি এন্ড সিভিলাইজেশন, ল এন্ড সোসাইটি

সোশ্যাল স্টাডিস : কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট, এথিক্স, পলিসি স্টাডিস

>> খরচ কেমন পড়বে ?

মাস্টার্স বাই রিসার্চ প্রোগ্রামগুলোর ক্ষেত্রে ডিগ্রী শেষ করার সময় ১ থেকে ২ বছর।
এখানে এক বছর এবং দেড় বছর খরচের হিসাবটি করে দেয়া হলো। আপনি যদি খুব ভালো করে পড়াশোনা করেন তবে এক থেকে দেড় বছরের মধ্যে ডিগ্রীটি শেষ করতে পারবেন।

বিজ্ঞানের বিষয়গুলোর (অ্যাপ্লায়েড সাইন্স এবং ন্যাচারাল সাইন্স) ক্ষেত্রে মোট টিউশন ফিস বাবদ খরচ পড়বে –
এক বছরে খরচ পড়বে ১ লাখ ৮৪ হাজার টাকার মতো
দেড় বছরে খরচ পড়বে ২ লাখ ২০ হাজার টাকার মতো

সমাজ বিজ্ঞানের (ইকোনমিক্স, বিসনেস এবং সমাজবিজ্ঞানের অন্য বিষয়গুলো) বিষয়গুলোর ক্ষেত্রে মোট টিউশন ফিস বাবদ খরচ পড়বে –
এক বছরে খরচ পড়বে ২ লাখ ৫ হাজার টাকার মতো
দেড় বছরে খরচ পড়বে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকার মতো

এখানে হিডেন কোনো খরচ নেই। তাই টিউশন ফিস বাবদ খরচ এমনটাই পড়বে।

>> হোস্টেল এবং থাকা-খাওয়ার জন্য খরচ কত পড়বে ?

হোস্টেলের খরচ বাবদ আপনার প্রতি সেমিস্টারে খরচ পড়বে প্রায় ১৬ হাজার টাকার মতো।

তাহলে এক বছরের হোস্টেল ফী পড়বে প্রায় ৩২ হাজার টাকা মতো কারণ এক বছরে দুটি সেমিস্টার।

আর আপনি যদি ক্যাম্পাসের বাইরে থাকেন তাহলে প্রতি মাসে সর্বনিম্ম ৫ হাজার

আর আপনি যদি ক্যাম্পাসের বাইরে থাকেন তাহলে প্রতি মাসে সর্বনিম্ম ৫ হাজার টাকার মধ্যেও শেয়ার্ড এপার্টমেন্ট কিংবা রুম পাবেন।

মালয়েশিয়াতে খাওয়ার খরচ এমনিতেই অনেক কম তার উপর বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় আরো কম।

তাহলে এক বছরে খাওয়া এবং অন্য খরচ বাবদ আপনার খরচ হবে প্রায় ৪০ থেকে ৬০ হাজার টাকার মতো। সাধারণত নিজে রান্না করে খেলে খরচ আরো একটু কমাতে পারবেন।

এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যান্টিনে খাওয়ার খরচও কম আবার মানও উন্নত।

সর্বমোট খরচ (মোট টিউশন ফিস এবং টাকা খাওয়া সহ) দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা থেকে ৩ লাখ টাকার মতো।

একটি ভালো মানের গবেষণাধর্মী বাইরের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা করতে পারবেন যা দেশের অনেক জায়গায় পড়াশোনার চাইতেও কম আবার মানেও অনেক ভালো।

তাছাড়া মাস্টার্স বাই রিসার্চ প্রোগ্রামের মূল্য সাধারণ মাস্টার্স প্রোগ্রাম থেকে অনেকগুলো বেশি।

>> যাওয়ার সময় কেমন খরচ পড়বে ?

মালয়েশিয়ার পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে প্রথমে যাবার সময়/ভর্তি হবার সময় দুই ধরণের খরচ আছে মূলত – একটি খরচ হচ্ছে ওয়ানটাইম খরচ যেমন ভিসা অপঃপ্রভাল লেটার, ইন্সুরেন্স ইত্যাদির ফিস মিলে।

পৃথিবীর অন্য দেশগুলোর মধ্যে কেবলমাত্র মালয়েশিয়াতেই ইম্মিগ্রেশনের একটি ডেডিকেটেড পোর্টাল আছে যা ইএমজিএস নামে পরিচিত। এই সাইট থেকে আপনি ভিসা এপ্রোভাল লেটার, ইন্সুরেন্স, রেসিডেন্স কার্ড ইত্যাদির জন্য একত্রে আবেদন করতে পারবেন।

মূলত বিশ্ববিদ্যালয়ে আগে আপনাকে আবেদন করতে হবে অফার লেটারের জন্য। অফার লেটার পাওয়ার পর আপনাকে দুটি কাজ করতে হবে – এক ইএমজিএস – এ আবেদন করতে হবে আর দ্বিতীয়তে বিশ্ববিদ্যালয়ের এডমিশন অফার একসেপ্ট করে তারপর প্রথম সেমিস্টারের ফী দিতে হবে।

ইএমজিএস- এ আবেদনের ক্ষেত্রে সব কিছু কম করে ধরার পর প্রায় ৩৬ হাজার টাকার মতো। এটি আপনি ক্রেডিট কার্ড কিংবা ব্যাংক ট্রান্সফারের মাধ্যমে দিতে পারবেন।

আর ঢাকা থেকে মালয়েশিয়াতে যাবার জন্য অনেকগুলো ফ্লাইট রয়েছে। কম খরচে ভালো সার্ভিসের জন্য মালিন্দো আর মোটামুটি খরচে আরো ভালো সার্ভিসের জন্য মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্স দেখতে পারেন। এদের ফ্লাইট প্রতিদিন ২-৩ টি করে রয়েছে।

মালয়েশিয়ান বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বরাবরই স্টুডেন্ট ফ্রেন্ডলি। তাই আপনি যদি চান তাহলে বিশ্ববিদ্যালয়কে অনুরোধ করতে পারেন আপনাকে এয়ারপোর্ট থেকে পিকআপ করে নিয়ে যেতে। সেই ক্ষেত্রে আপনার পিকআপ করার জন্য যে ট্রান্সপোর্ট খরচ তা আপনাকে বহন করতে হবে। অবশ্য এই খরচ কিন্তু নিজ থেকে ট্যাক্সি কিংবা কোনো মাধ্যমে যাতায়াত করার চাইতে কম।

>> আবেদন এবং বিস্তারিত তথ্যের জন্য কি করতে হবে ?

আবেদন এবং বিস্তারিত জানতে জানতে (ইংরেজিতে) গুগল করুন ইউনিভার্সিটি মালয়েশিয়া তেরেংগানু (Universiti Malaysia Terengganu)।

সরাসরি বিশ্ববিদ্যালয়ের এডমিশন অফিস এবং ইন্টারন্যাশনাল অফিসের সাথে ইমেইলে যোগাযোগ করে নিজেরাই আবেদন করতে পারবেন।

লেখকঃ নূর-আল-আহাদ, ফিনান্সিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং গবেষক (জাপান)

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here