দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম পরমাণু শক্তিধর দেশ ভারত সম্প্রতি রাশিয়ার তৈরি এস-৪০০ বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এ অত্যাধুনিক প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা পেতে ইতিমধ্যেই তৈরিকারক দেশ রাশিয়াকে অগ্রিম ৮০০ মিলিয়ন ডলার দিয়েছে। সোমবার সাংবাদিকদের এ কথা জানিয়েছেন রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংস্থা রোসটেকের প্রধান সের্গেই চেমেজভ।

তিনি বলেন, এ চুক্তির আওতায় ভারতকে ২০২৫ সালে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা সরবরাহ করা হবে।

আলজাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাশিয়ার সঙ্গে ভারতের এ চুক্তিতে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা এসেছিল তবে নয়াদিল্লি যুক্তরাষ্ট্র থেকে ছাড়ের বিষয়ে সংকেত পেয়েছে। এর আগে ২০১৮ সালে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন দিল্লি সফরে আসলে ভারতের সঙ্গে ৫ বিলিয়ন ডলারে এস-৪০০ কেনার চুক্তি হয়।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার ব্রাজিলে এক সম্মেলনে পুতিন বলেছেন, পরিকল্পনা অনুযায়ী ভারতকে এস-৪০০ সরবরাহ করা হবে। গত পাঁচ বছরে ভারতের সামরিক যন্ত্রপাতি ও অস্ত্রের ৬২ শতাংশ মস্কো থেকে কেনা হয়েছে। ভারতের সবচেয়ে বড় সামরিক যন্ত্রপাতি সরবরাহকারী দেশ রাশিয়া।

সম্প্রতি কয়েক বছরে ভারত সরকার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইল থেকে অস্ত্র কেনা সীমিত করেছে।

এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা কেনার পরিকল্পনা নিয়ে ভারতকে তুরস্কের মতো নিষেধাজ্ঞার হুমকি দিয়েছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আইনে ( নিষেধাজ্ঞা আইন সিএএটিএসএ) রাশিয়া থেকে সামরিক সরঞ্জামাদি কিনলে নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়তে হয়। তবে প্রেসিডেন্টের ছাড়ের বিষয়ের সুযোগ রয়েছে।

ভারতীয় বিশ্লেষক শুকলা আলজাজিরাকে বলেছেন, উদ্বেগ সত্ত্বেও এই পদক্ষেপ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কের সঙ্গে নেতিবাচক প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা নেই; যেমনটি তুরস্কের সঙ্গে হয়েছিল।

ভারত কয়েকদশক ধরে রাশিয়া থেকে অস্ত্র কিনছে। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে অস্ত্র কেনার দিকে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বেশ খুশি তারা উল্লেখসংখ্যক হারে অস্ত্র ভারতে বিক্রি করতে পারছে এবং তারা বুঝতে পেরেছে রাশিয়ার সঙ্গে ভারতের ঐতিহাসিক সামরিক সম্পর্ক রয়েছে যা বন্ধ করা সম্ভব নয়।

ভারত- রাশিয়ার মধ্যে সম্পর্ক খুবই পুরনো ও পরীক্ষিত। তবে বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে ভারতের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক খুবই উত্তপ্ত। যুক্তরাষ্ট্রের পণ্য আমদানি ও বিক্রিতে উচ্চ শুল্ক আরোপ করেছে দিল্লি। অন্যদিকে স্টিল শিল্পে ভারতকে শুল্ক ছাড় না দিতে অনড় রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

বিশ্লেষকদের ধারণা, জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের বিরোধের জেরেই দ্রুত এস-৪০০ পেতে মরিয়া নয়া দিল্লি। কারণ হিসেবে তারা দেখছেন, আগস্টের পর থেকে পাকিস্তান দুটি পরমাণুবাহী ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালিয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here