বিজিএমইএ ভবন না ভেঙ্গে হাসপাতাল করুন!

বাংলাদেশ সবেমাত্র তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে তলাযুক্ত ঝুড়ির তালিকায় নাম লেখেছে। কিন্তু বাস্তবতার দিকে তাকালে আমরা এখনো এক মরূদ্যানে রয়েগেছি। লক্ষ লক্ষ পথশিশু এখনো আমাদের রাজধানীর আনাচে কানাচে রাত্রিযাপন করে। হাজারো মানুষ চিকিৎসার অভাবে প্রতিদিন রাজধানীতে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করে।

অসংখ্য মানুষ শিক্ষা বঞ্চিত হয়ে অপরাধ কর্মে যুক্ত হয় প্রতিনিয়ত। প্রতিদিন মানুষের উপর মানুষ চালিয়ে জীবনপাত করে চলেছি আমরা। আমাদের জিডিপি ৭.৮০ (সূত্রঃ মাসিক কারেন্ট আপডেট) হলেও বাস্তবিক অর্থে অনেক পিছনে রয়েগেছি এখনো আমরা। আমাদের মাথাপিছু আয় ১৯০৯ হলেও (তথ্যঃ সাম্প্রতিক কারেন্ট নিউজ) এখনো আমাদের দেশের ১৪% মানুষ ঠিকঠাক মতো খেতে পারে না। আমাদের জীবনযাত্রার মান অনেক উঁচুতে হলেও আমাদের এখনো লক্ষ লক্ষ মানুষ রাস্তায় ঘুমায়।

এবার আসি আসল কথায়, রাজধানীর হাতিরঝিলে অবস্থিত গার্মেন্টস মালিকদের সর্বোচ্চ সংগঠন বিজিএমইএ এর প্রধান কার্যালয় যা বিজিএমইএ ভবন নামে পরিচিত। রাজধানীর প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত হওয়ায় এর গুরুত্বটাও অনেক। ভবনটি নির্মানের সময় আইন মানা হয় নি এবং কি নিয়ম ভেঙ্গে এই ভবন নির্মান করা হয়েছে। ভবনটি পানির মধ্যখানে থাকায় হাতিরঝিলের পানির প্রবাহ ঠিকমতো চলাচল করতে পারছে না। এখন কথা হলো দেশে তো লক্ষ লক্ষ এরকম বিল্ডিং আইন অমান্য করে বানানো হয়েছে তাদের পক্ষে কোন একশন নেওয়া হয়েছে কি?

যেহেতু দেশের সর্বোচ্চ আদালতের রায় রয়েছে সেহেতু আমি আদালতের রায় কে অশ্রদ্ধা করছি না। কিন্তু কথা হচ্ছে এই বিল্ডিং বানাতে কয়েকশো কোটি টাকা খরচ হয়েছে। আবার ভাঙ্গতে খরচ হবে ২ কোটি টাকা (তথ্যঃ যুগান্তর)।

বাংলাদেশ এখনো আমেরিকা ইংল্যান্ডের মতো হয়ে যায় নি যে সামান্য কারণে কয়েক হাজার কোটি টাকার সম্পদ নষ্ট করে ফেলতে হবে। যেহেতু তারা আইন লঙ্ঘন করে বিল্ডিং নির্মান করেছে সেহেতু সরকার চাইলেই সেই বিল্ডিং সিজ/রিকুইজিশন করে নিতে পারে। পরে এটিকে হাসপাতালে রুপান্তর করা যেতে পারে। বাংলাদেশের একজন সচেতন নাগরিক হিসাবে আমি সরকারের কাছে আবেদন জানাবো, এই বিল্ডিংটি না ভেঙ্গে এটিকে গার্মেন্ট শ্রমিকদের জন্য স্পেশাল হাসপাতালে রুপান্তর করুন। দেশের এতো টাকার সম্পদ নষ্ট করবেন না!

লেখক: ফারুক হাসান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। যুগ্ম-আহবায়ক, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।

এ বিভাগে প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। স্টুডেন্ট জার্নাল-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে প্রকাশিত মতামত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here