পটুয়াখালীতে মঞ্চায়িত হলো সেলিম আল দীনের “চাকা”

নাট্যকার সেলিম আল দীনের বিখ্যাত নাট্যাখ্যান “চাকা”। স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের পটভূমিতে নাটকটি রচনা করেন তিনি। ১৯৮৭ সালে স্বৈরাচারি সরকারের আদেশে ছাত্র জনতার মিছিলে পুলিশ গুলি চালালে শহীদ হন নূর হোসেন। তিনি লাশে পরিণত হন। কে নেবে এই লাশের দায়? শেষ পর্যন্ত লাশটি হয়ে উঠে সাধারণ মানুষের স্বজন। এটিই ছিল চাকা’র মূল উপজীব্য। তবে নাটকের পরিব্যাপ্তি আরও বহুদূর।

পটুয়াখালীতে একদল তরুণ-তরুণীর নব্যগঠিত থিয়েটার “পথিক” এর প্রযোজনায় এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও তরুণ নাট্য নির্দেশক খন্দকার রাকিবুল হকের নির্দেশনায় মঞ্চস্থ হলো নাটকটি। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি (শুক্রবার) জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে নাটকটি মঞ্চায়িত হয়। গণ অর্থায়নে নাটকটি মঞ্চে পরিবেশিত হয়।

আলো আঁধারীর খেলা, শৌল্পিক কোরিওগ্রাফি সর্বোপরী তরুণ অভিনেতাদের অভিনয় মুগ্ধ করেছে দর্শকদের। হৃদয় ছুয়ে যাওয়া গল্প, অভিনয় শৈলী, ভাওয়াইয়া গানের ব্যবহার ও প্রলয় নৃত্য মিলেমিশে একাকার হয়েছে নাটকে। নাটকের শেষে অশ্রু বর্ষন হয়েছে অনেক দর্শকেরই। আবেগ ধরে রাখতে পারেন নি অভিনেতারাও।
নাটকটিতে অভিনয় করেছেন পথিক নাট্যদলের সদস্য লিখন, লিওনা, অনু, পিউলি, মারুফসহ ১২ জন তরুণ নাট্যকর্মী। গানে কণ্ঠ দিয়েছেন মাহফুজ ও আলোকসজ্জায় ছিলেন স্মরণ। তারা দুজনও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা কালচারাল অফিসার কামরুজ্জামান সহ জেলার অন্যান্য সাংস্কৃতিক সংগঠনের ব্যক্তিবর্গ। দর্শকদের মত তারাও অভিনেতা ও কলা কুশলীদের প্রশংসা করেন।

উল্লেখ্য স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের পটভূমিতে লেখা নাটকটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৯১ সালে। পরবর্তীতে এই নাট্যাখ্যানের গল্প অবলম্বনে সিনেমা তৈরি করেন মোরশেদুল ইসলাম।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here