ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ নেশাগ্রস্ত কর্মীদের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার বেলা ১২টার দিকে ছাত্রলীগের দলীয় টেন্টে এই ঘটনা ঘটে। এ সময় ছাত্রলীগের ২০১৩-২০১৪ শিক্ষাবর্ষের শাহজালাল ইসলাম সোহাগ নামে এক কর্মী নেশাগ্রস্ত অবস্থায় টেন্টে বমি করতে করতে অসুস্থ হয়ে পড়ে। এই ঘটনায় ছাত্রলীগের একাংশের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ দেখা দেয়।

প্রতক্ষ্যদর্শী সূত্রে জানা যায়, শনিবার বেলা ১২টার দিকে ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছুটি শেষে নেতাকর্মীদের সাথে কুশল বিনিময় করতে ক্যাম্পাসে আসেন। ওই সময় বিদ্রোহী গ্রুপের ছাত্রলীগ নেতা মিজানুর রহমান লালনের নেতৃত্বে ২০/২৫ জন কর্মী ছাত্রলীগের দলীয় টেন্টের পাশে অবস্থান নেয়। পরে নেশাগ্রস্ত অবস্থায় শাহজালাল ইসলাম সোহাগ ও স্বপ্নসহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী সভাপতির উপড় চড়াও হয় ও গালিগালাজ শুরু করে। এই ঘটনায় সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ ক্ষুব্ধ দলীয় টেন্ট ত্যাগ করেন।

এর কিছুক্ষণ পরে শাহজালাল সোহাগ নেশাগ্রস্ত অবস্থায় বমি করতে করতে টেন্টে অসুস্থ হয়ে পড়েন।

শাহজালাল ইসলাম সোহাগ বলেন, আমাদের বিষয়ে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন।

শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ বলেন, বিদ্রোহী কিছু কর্মী মাদকাসক্ত অবস্থায় খারাপ আচরণ করলে আমি ক্যাম্পাস ত্যাগ করি। মাদক সেবন ও বিক্রির অভিযোগ ওদের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিনের। যাই হোক, ছুটি শেষে নেতাকর্মীদের সাথে কুশল বিনিময় ও আবরার হত্যার বিচার দাবিতে লিফলেট বিতরণের জন্য ক্যাম্পাসে গিয়েছিলাম।

বিশ্ববিদ্যারয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. পরেশ চন্দ্র বর্ম্মণ বলেন, ছাত্রলীগের টেন্টে এমন ঘটনা অত্যন্ত কষ্টদায়ক। ঘটনাটি সত্য হয়ে থাকলে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here