নির্বাচনী প্রচারকর্মীকে জোর করে চুমু খাওয়ার অভিযোগ উঠেছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে। সেই চুমুর ভিডিও আবার নিজের আইনজীবীকে দিয়ে বুধবার পোস্ট করিয়েছেন তিনি!

যৌন কেলেঙ্কারি নিয়ে একাধিকবার বিপাকে পড়া ট্রাম্পের বিরুদ্ধে কিছুদিন আগে ধর্ষণের অভিযোগ তোলেন এক লেখিকা।

বিশ্বখ্যাত সাময়িকী বিজনেস ইনসাইডার ট্রাম্পের চুমু খাওয়ার ওই ভিডিওটি প্রকাশ করেছে। জিফ ফাইল আকারে পোস্ট করা সেই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে সাদা টিশার্ট এবং সাদা ক্যাপ পরা এক তরুণীকে দুহাত দিয়ে ধরে গালে চুমু খাচ্ছেন ট্রাম্প। এরপর তরুণীকে একটি ঝাঁকুনিও দেন বহুল আলোচিত এই প্রেসিডেন্ট।

আলভা জনসন নামের ওই তরুণীর দাবি, ২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারের সময় ট্রাম্প তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ওভাবে চুমু খান। তিনি ইতিমধ্যে আদালতে অভিযোগও দাখিল করেছেন।

জনসন বলছেন, ‘তিনি আমার অনেক কাছে চলে আসেন। মনে হচ্ছিল মুখের ওপর তার নিশ্বাস পড়বে। হঠাৎ বুঝতে পারি আমাকে চুমু খেতে আসছেন। তখন মুখ একপাশে সরিয়ে নিলেও আমার গালে চুমু খেয়েই ছাড়েন।’

ট্রাম্পের আইনজীবীরা নিজেদের উদ্যোগে ভিডিওটি সংগ্রহ করে আদালতকে দেখিয়েছেন। এরপর সেটি পোস্ট করেন।

আইনজীবী চার্লস হার্ডার ১৫ সেকেন্ডের ওই ভিডিওকে ট্রাম্পের পক্ষে ‘অকাট্য যুক্তি’ বলছেন। তার দাবি, এখানে ট্রাম্প ভিন্ন কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে নিজের কর্মীর গালে চুমু খাননি। মুহূর্তটিকে ‘নিষ্পাপ’ হিসেবেও দাবি করেন তিনি।

জনসনের আইনজীবী আবার এই ভিডিওটিকে নিজের ‘অস্ত্র’ বানাচ্ছেন। তিনি বলেছেন, জনসন যে মিথ্যা বলেননি এই ভিডিও তার প্রমাণ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here