মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলায় নগ্ন ছবি ছেড়ে দেওয়ার হুমকির কারণে তহমিনা নামে এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শুক্রবার রাতে উপজেলার দরগ্রাম ইউনিয়নে মধ্য রৌহা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

তাহমিনা গোপালপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী এবং রৌহা গ্রামের মৃত খোরশেদ মিয়ার মেয়ে।

অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম রেদুয়ান হোসেন। সে দরগ্রাম ভিকু মেমোরিয়াল ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। তার বাবা ৯ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মাসুদ মিয়া।

জানা গেছে, তাহমিনার সঙ্গে রেদুয়ানের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এক পর্যায়ে তাহমিনার নগ্ন ছবি ও ভিডিও মোবাইলে ধারণ করে ব্লাকমেইল শুরু করেন রেদুয়ান। এ কারণে তাহমিনা ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার।

মারা যাওয়ার আগে তাহমিনা একটি চিরকুট লিখেছে ‘আমাকে ক্ষমা কর মা। আমি আর সইতে পারছি না। আমি জানি অনেকের সঙ্গে আমি খারাপ ব্যবহার করেছি। পারলে আমাকে ক্ষমা করে দিও।’

বন্ধু-বান্ধবীদের উদ্দেশ্যে লিখেছ, ‘তোরা ভালো থাকিস। আমি ওপারে চলে গেলাম।’

তাহমিনার মামা আব্দুস সোবহান মিয়া জানান, তাহমিনার মোবাইল থেকে রেদুয়ানের সঙ্গে তার একটি ভিডিও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

তাহমিনার বান্ধবীরা জানায়, রেদুয়ান রাস্তা-ঘাটে তাহমিনাকে মানসিক নির্যাতন করতো। এক পর্যায়ে নগ্ন ছবি মোবাইলে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেন তিনি।

সাটুরিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মতিয়ার রহমান মিয়া জানান, মেয়েটির মোবাইল থেকে ভিডিও উদ্ধার করা হয়েছে। তা পর্যালোচনা করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here