দৃষ্টি জুড়াচ্ছে বেগুনি ধান, আগ্রহ বাড়ছে কৃষকসহ স্থানীয়দের

চিরায়ত ধান গাছের সবুজ রঙের পরিবর্তে কৃষকের জমিতে শোভা পাচ্ছে বেগুনি ধান (পার্পল লিফ রাইস)। এ ধানের প্রতি কৃষকসহ স্থানীয়দের দিন দিন আগ্রহ বাড়ছে।

দেশে প্রথমবারের মতো গাজীপুরের শ্রীপুর ও কাপাসিয়া উপজেলায় এ জাতের ধানের চাষ হয়েছে। জেলার এ দুই উপজেলায় এবার ০.৫৮০ হেক্টর জমিতে নতুন এ ধানের চাষ হয়েছে।

জেলা কৃষি বিভাগের সূত্রমতে, এ জাতের ধান এখনো আমাদের দেশে অনুমোদন পায়নি। আন্তর্জাতিক ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইআরআরআই) উদ্ভাবিত এ ধান ভিন্ন রংয়ের হলেও এর বিশেষ কোনো গুণের কথা এখন পর্যন্ত জানা যায়নি। হেক্টরপ্রতি এ ধান ৪-৫ টন উৎপাদন হয়।

শ্রীপুরের বেকাশহরা গ্রামের কৃষক এনামুল হক বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ জাতের ধানের কথা জানতে পারি। পরে শখের বশে বীজ সংগ্রহ করে টেংরা-বরমী সড়কের পাশে ৩৫ শতাংশ জমিতে এ ধানের চাষ করি। এখন দৃষ্টিনন্দন হয়ে উঠেছে ধানের জমি। পথচারীসহ অনেকেই এ ধান দেখতে আসেন।’

শৈলাট গ্রামের কৃষক আব্দুর রশিদ বলেন, ‘এবার ১০ শতাংশ জমিতে বেগুনি ধান চাষ করেছি। এখন প্রতিদিন এলাকার কৃষকরা ছাড়াও উৎসুক মানুষ নতুন জাতের এই ধান দেখতে ছুটে আসছেন। ছবিও তুলছেন অনেকে। ফলন যাই হোক; সবার আগ্রহ তৈরি হচ্ছে এ বেগুনি ধান নিয়ে।’

গাজীপুর জেলা কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক মাহবুব আলম বলেন, ‘উচ্চফলনশীল না হলেও অনেকেই শখের বশে এ জাতের ধান চাষ করছেন। তবে কৃষকদের বড় পরিসরে চাষ না করার জন্য আমাদের পক্ষ থেকে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। কেননা সৌন্দর্য ছড়ানো ছাড়া এ ধানের বিশেষ কোনো গুণের কথা এখন পর্যন্ত জানা যায়নি।’

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here