দুরন্ত সাহসী খোকা থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু

টুঙ্গিপাড়ার দুরন্ত সাহসী খোকা থেকেই হয়ে উঠেছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। গ্রামের মানুষের সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না ছুঁয়ে যেত ডানপিটে কিশোর মুজিবের মন। জমিদার মহাজনদের অত্যাচার ও প্রজা নিপীড়নের বিরুদ্ধে শৈশবেই রুখে দাঁড়িয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু।

প্রকৃতি আর মানুষের প্রতি ছিলো অন্যরকম মমত্ব। তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। জাতির জনক নেই কিন্তু গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় রয়ে গেছে তার বহু স্মৃতি।

গিমাডাঙ্গার এই স্কুলের ছাত্র ছিলেন জাতির পিতা। আার এই স্কুলের মাঠেই ফুটবল খেলতেন নিয়মিত। জাতীয় খেলা হাডুডুতেও ছিলো তার জুড়ি মেলা ভার।

বঙ্গবন্ধুর শৈশব কেটেছে মেঠো পথের ধুলোবালি আর বর্ষার কাদাপানি মেখে। যেকোন সংকট মোকাবেলায় তিনি ছিলেন স্রোতের বিপরীতে নির্ভীক নাবিক।

গ্রামের মানুষের সুখ-দুঃখ সবকিছুই ছুঁয়ে যেতো কিশোর মুজিবের মন। শৈশবেই অন্যায়ের বিরুদ্ধে বলিষ্ঠ কণ্ঠ তাকে নিয়ে যায় রাজপথে। হয়ে ওঠেন জনমানুষের মহানায়ক।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here