দিল্লির বিক্ষোভে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪২

ভারতে বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী (সিএএ) আইনকে কেন্দ্র করে রাজধানী দিল্লিতে বিক্ষোভ-সহিংসতায় ৪২ জন নিহত হয়েছে। এতে আহত হয়েছে আরও অন্তত ৩ শতাধিক মানুষ। এখনও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে উত্তর-পূর্ব দিল্লির মৌজপুর, বাবরপুর, জাফরাবাদের মতো বেশ কয়েকটি এলাকায়।

শুক্রবারের নামাজের আগে নিরাপত্তার লক্ষ্যে গুরুগ্রামে হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। প্রতিহিংসার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৮টি এফআইআর দায়ের করেছে দিল্লি পুলিশ। সহিংসতার ঘটনা তদন্তে দুটি বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করা হয়েছে।

দোকান-পাট কিছুক্ষণ খোলা রাখার জন্য কোথাও কোথাও কয়েক ঘণ্টার জন্য কারফিউ শিথিল করা হয়েছে। গত রোববার সহিংসতা শুরুর পর থেকেই গুরুগ্রামে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়।

গত রোববার থেকে দিল্লির উত্তর-পূর্বের বিভিন্ন শহরে দাঙ্গা-সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। সহিংসতার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে এর আগে কড়া বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল। শুক্রবার থেকে এসব বিধি-নিষেধ কমে আসতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ দিল্লির পরিস্থিতি নিয়ে ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। তবে গত কয়েকদিনের সহিংসতা নিয়ে কোনো ধরনের বক্তব্য না দেয়ায় তাকে নিয়ে বেশ সমালোচনা হয়েছে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও সহিংসতা শুরুর পর চুপই ছিলেন। সহিংসতার তিনদিন পর তিনি সবাইকে শান্তি ও ভ্রাতৃত্ববোধ বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছেন।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল ঘোষণা দিয়েছেন যে, সহিংসতার ঘটনায় হতাহত ব্যক্তিদের ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে। নিহত বয়স্ক পরিবারকে ১০ লাখ ও নিহত নাবালক পরিবারকে ৫ লাখ রুপি করে আর্থিক সহায়তা দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, মানুষের উচিত হবে গুজবে কান না দেওয়া এবং যে দুষ্কৃতীরা সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা বাড়াতে চাইছে তাদের ফাঁদে পা না দেওয়া। এতে আরও বলা হয়েছে, দিল্লির ২০৩টি থানার মধ্যে মাত্র ১২টি থানার এলাকা অর্থাৎ প্রায় ৪.২ শতাংশ এলাকা দাঙ্গায় আক্রান্ত হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here