জমজ ছেলের মেডিকেলে পড়া নিয়ে উদ্বিগ্ন অটোচালক বাবা, পাশে দাঁড়ালেন ডিসি

কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার মানরা গ্রামের অটোরিকশা চালক বিল্লাল হোসেনের যমজ দুই ছেলে অদম্য মেধাবী আরিফুল ইসলাম ও শরিফুল ইসলাম এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। তারা সরকারি মেডিকেল কলেজে পড়ার সুযোগ পেলেও অর্থনৈতিক সমস্যায় অনিশ্চয়তা দেখা দেয়।

বিষয়টি জানতে পেরে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ কামরুল হাসান মানবিকতা নিয়ে দুই সহোদরের দায়িত্ব নিয়েছেন। আজ বুধবার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান মনোহরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোহেল রানার মাধ্যমে মেধাবী দুই সহোদরের হাতে ২০ হাজার টাকার আর্থিক অনুদান পৌঁছে দেন। পাশাপাশি এই দুই সহোদরের জন্য সার্বিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখারও আশ্বাস দেন।

এসময় হাসনাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান কামাল হোসেন এবং মেধাবী দুই সহোদরের পিতা বিল্লাল হোসেন উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের এসএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগে উপজেলার মান্দারগাঁও উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ ৫ পাওয়ার পর এলাকাবাসীর সহযোগিতায় কুমিল্লা সরকারি সিটি কলেজে ভর্তি হয় আরিফুল ইসলাম ও শরিফুল ইসলাম। সেখান থেকে এইচএসসিতেও জিপিএ ৫ পায় তারা।
এবার সদ্য প্রকাশিত এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় আরিফ সারাদেশে ৮২২তম হয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেলে এবং শরিফ ১১৮৬তম হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ লাভ করেন। ছেলেদের এমন সফলতায় মা-বাবা ভীষণ খুশি। বাকি দুই সন্তানের মধ্যে সাইফুল ইসলাম মাদ্রাসায় এবং আমেনা আক্তার প্রাইমারি স্কুলে পড়ে।

এমন পরিবারের কর্তা অটোরিকশা চালক বিল্লাল হোসেনের সামান্য আয় দিয়ে চার সন্তানের লেখাপড়ার খরচ ও সংসারের ভরণপোষণ চলে। এর মধ্যে জমজ ছেলের মেডিকেলে পড়া নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন বাবা। এমন পরিস্থিতে পাশে দাঁড়ালেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ কামরুল হাসান । আরিফ ও শরিফ জানান, তারা চিকিৎসক হয়ে মানুষের সেবা করতে চান। বাবার পরিশ্রম, মায়ের যত্ন আর শিক্ষকদের সহযোগিতায় তাদের লেখাপড়ার সাহস যুগিয়েছে। তারা সকলের দোয়া প্রার্থী।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here