কবি মুহাম্মদ সামাদ চীনের ইন্টারন্যাশনাল পোয়েট্রি ট্রান্সলেশন এন্ড রিসার্চ সেন্টার (আইপিটিআরসি) গ্রিক একাডেমি অব আর্টস অ্যান্ড লেটারস এবং দি জার্নাল অব দি ওয়ার্লড পোয়েটস কোয়ার্টারলি কর্তৃক ঘোষিত ‘দি প্রাইজেস ২০১৮: দি ইন্টারন্যাশনাল বেস্ট পোয়েট’ মনোনীত হন।

আজ শনিবার (২৫ জানুয়ারি) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলরের কার্যালয়ে আইপিটিআরসির প্রতিনিধি চীনের ইলেকট্রনিক সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি ইউনিভার্সিটির শিক্ষক মিজ ইন শিয়াওহুয়া ২০১৮ সালের সেরা কবির পুরস্কারটি কবি মুহাম্মদ সামাদ-এর নিকট আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করেন।

এ সময় মিজ ইন শিয়াওহুয়ার সঙ্গে তাঁর স্বামী একই বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএইচ. ডি গবেষক জনাব আলতাফ হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

কাব্য-সাহিত্যে অবদানের জন্য আইপিটিআরসি দশ দেশের দশ জন কবিকে বেস্ট পয়েট মনোনীত করেছে।

অন্য দেশের নয়জন কবি হলেন- ১. রুমানিয়ার ড্রাগোস বারবু (Dragos Barb), ২. তুরস্কের হিলাল কারাহান (Hilal Karahan), ৩. মেসিডোনিয়ার মাইট স্টেফোসকি (Mite Stefoski), ৪. ক্যাতালুনিয়া-স্পেনের তনিয়া প্যাসোলা (Tonia Passola), ৫. সৌদি আরবের আলী আল-হাজমি (Ali Al-Hazmi), ৬. ভারতের মন্ডল বিজয় বেগ (Mandal Bijoy Beg), ৭. আলবেনিয়ার ফাতিমি কুল্লি (Fatime Kulli), ৮. চীনের দুয়ান গুয়ানঙা’ন (DUAN Guang’an) এবং ৯. বেলজিয়ামের ডমিনিক হেক ((Dominique Hecq).

মুহাম্মদ সামাদ বাংলা ভাষা-সাহিত্যের একজন প্রতিভাবান ও জনপ্রিয় কবি। তাঁর কবিতা ইংরেজি, চীনা, গ্রিক, সুইডিশ, সার্বিয়ান, হিন্দি, সিনহালি প্রভৃতি ভাষায় অনূদিত হয়েছে। কাব্যক্ষেত্রে কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য তিনি সিটি আনন্দ-আলো পুরস্কার, সৈয়দ মুজতবা আলী সাহিত্য পুরস্কার, কবি সুকান্ত সাহিত্য পুরস্কার, কবি জীবনানন্দ দাশ পুরস্কার, কবি জসীম উদ্দীন সাহিত্য পুরস্কার, ত্রিভূজ সাহিত্য পুরস্কার, কবি বিষ্ণু দে পুরস্কার, কবিতালাপ পুরস্কারসহ অনেক সম্মাননা লাভ করেন।

মুহাম্মদ সামাদের প্রকাশিত উল্লেখযোগ্য কাব্য গ্রন্থগুলো হচ্ছে- আমি তোমাদের কবি; আমার দু’চোখ জলে ভরে যায়; আজ শরতের আকাশে পূর্ণিমা; চলো, তুমুল বৃষ্টিতে ভিজি; পোড়াবে চন্দন কাঠ; আমি নই ইন্দ্রজিৎ মেঘের আড়ালে; একজন রাজনৈতিক নেতার মেনিফেস্টো; প্রেমের কবিতা; কবিতাসংগ্রহ ও ঝবষবপঃবফ চড়বসং। মুহাম্মদ সামাদ-এর জন্ম ১৯৫৬ সালে তৎকালীন ময়মনসিংহ জেলার জামালপুরে। তিনি জাতীয় কবিতা পরিষদের সভাপতি। বর্তমানে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলরের দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here