‘মধুর বসন্ত এসেছে মধুর মিলন ঘটাতে’ এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) বাংলা বিভাগ প্রথমবারের মতো আয়োজন করেছে বসন্ত বরণ উৎসব।

শনিবার (১৫ ফেব্রুয়ারী) সকাল থেকে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন পরিবেশনায় মুখরিত ছিল কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের অন্তর্গত বাংলা চত্বর। উৎসবে বাংলা বিভাগের প্রথম বর্ষ থেকে মাস্টার্স পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন।

সকাল সাড়ে দশটায় মুঠোফোনের মাধ্যমে উৎসবের উদ্বোধন ঘোষণা করে বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. মহিবুল আজীজ।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) বাংলা বিভাগ প্রথমবারের মতো আয়োজন করেছে বসন্ত বরণ উৎসব।

পরে বাংলা বিভাগের ২০১৫-২০১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী জীবন বড়ুয়া ও জান্নাতুল সাদিয়া পুষ্প’র সঞ্চালনায় শিক্ষার্থীরা পরিবেশন করেন নাচ, গান, আবৃত্তি, তাৎক্ষণিক অভিনয়সহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। উৎসবে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি গান পরিবেশনা করেন চবি ক্যাম্পাসের পরিচিত ব্যান্ড ’সরলা’।

শিক্ষার্থীরা পরিবেশন করেন নাচ, গান, আবৃত্তি, তাৎক্ষণিক অভিনয়সহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক পরিবেশনা।

উৎসবের অন্যতম অকর্ষন হিসেবে ছিল বাঙালি জাতির বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী খাবার। যার মধ্যে রয়েছে, মোয়া, তিলের খাজা, দেশি কুল, গজা, মিষ্টি, বাতাসা, খুরমা ও খিলি পান।

উৎসবে অংশগ্রহণ করা ২০১৫-২০১৬ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রী হুমাইরা তাজরিন ইতু বলেন, বাংলা বিভাগের কাছে এধরণের ঐতিহ্যবাহী আয়োজন সবসময় আশা করা হলেও এই প্রথমবারের মতো আয়োজিত হলো বসন্ত বরণ। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ষড়ঋতুর বাংলাদেশের বৈচিত্র্য বিলুপ্তির পথে, এ ধরণের আয়োজনের মাধ্যমে আমরা আমাদের প্রাকৃতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য লালন করতে চাই। আর বাংলা বিভাগের ছাত্র-ছাত্রী হিসেবে এসব ঐতিহ্য ধরে রাখা এবং পালন করা আমাদের অন্যতম দায়িত্ব। তাই ভবিষ্যতে বাংলা বিভাগের হয়ে এধরণের আয়োজন বাস্তবায়নে আমরা উদগ্রীব ।

মাস্টার্সের শিক্ষার্থী সোহারাভ পাভেল বলেন, বাঙালি সংস্কৃতিকে বাঁচিয়ে রাখার লক্ষ্যে আমাদের আজকের এই উৎসবের আয়োজন। ভবিষ্যতে আরও ভালো ভালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে পারব বলে আমি আশাবাদী। আমাদের বিভাগের শিক্ষকরা যদি আমাদের পাশে থাকে তাহলে ভবিষ্যতে আরো ভালো ভালো প্রোগ্রাম আমরা আয়োজন করতে পারব।

উৎসবে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি গান পরিবেশনা করেন চবি ক্যাম্পাসের পরিচিত ব্যান্ড ’সরলা’।

বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. মাখন চন্দ্র রায় বলেন, বাংলা বিভাগের উদ্যোগে আজকের বসন্ত বরণ উৎসব সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পেরেছি। এধরণের আয়োজন বর্তমান তরুণ প্রজন্মকে আরও প্রগতিশীল করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আমি মনে করি।

এতে বাংলা বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. শফিউল আজম ডালিম ও অধ্যাপক আবু বকর ছিদ্দিক উপস্থিত ছিলেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here