গেস্টরুমে এক ছাত্রকে চড় মারার অভিযোগ ছাত্রলীগ কর্মীর বিরুদ্ধে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজয় একাত্তর হলে এক শিক্ষার্থীকে চড় মারার অভিযোগ ওঠেছে ওই হল শাখা ছাত্রলীগের এক কর্মীর বিরুদ্ধে। ওই সময় ওই শিক্ষার্থীকে ‘লাথি মেরে হল থেকে বের করে’ দেওয়ার হুমকিও দেয় ওই ছাত্রলীগ কর্মী।

বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে দশটার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত ওই ছাত্রলীগ কর্মীর নাম নাইম আহমেদ। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী। বিজয় একাত্তর হলের আবাসিক ছাত্র। অভিযুক্ত নাইম ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভাপতি আল নাহিয়ান খানের অনুসারী।

মারধরের শিকার ওই ছাত্রের নাম খাইরুল আমিন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং এন্ড ইনসুরেন্স বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনিও বিজয় একাত্তর হলের আবাসিক ছাত্র।

হল ও ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, হলের বাইরে কোথাও গেলে ছাত্রলীগের বড় ভাইদের কাছ থেকে ছুটি নিয়ে যেতে হয়। ২য় বর্ষের প্রান্ত, লিমন ও মারধরকারী নাইম তাদের এ ছুটি দেয়।

মারধরের শিকার খায়রুল আমিন বলেন, তিনি ‘বড় ভাইদের’ কাছ থেকে ছুটি নিয়ে ধানমন্ডি যান। ওই দিন আর গেস্টরুম করতে পারেননি। ‘গেস্টরুমে কেন আসেনি’ পরের দিন গেস্টরুমে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে নাইম ও তার সহযোগীরা।

খায়রুল আমিন বলেন, আমি বলেছে আপনি (নাইম), প্রান্ত ও লিমন ভাইয়ের কাছ থেকে ছুটি নিয়েছি। এরপর তিনি বলেন, ছুটি নিয়েছিস। কিন্তু এসে আমাকে বলিস নাই কেন? এই বলে, ‘তিনি আমাকে চড় মারেন এবং লাথি মেরে হল থেকে বের করে’ দেওয়ার হুমকি দেন।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছে নাইম আহমেদ। তিনি বলেন, আমি চড় মারিনি। হলে এমন কোনো ঘটনাও ঘটেনি।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভাপতি আল নাহিয়ান খানকে একাধিক বার কল করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক একেএম গোলাম রব্বানী বিষয়টি ওই হলের প্রাধ্যক্ষকে জানাতে বলেন। তিনি বলেন, প্রভোস্টকে জানাও। অভিযোগের সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নিবো।

বিজয় একাত্তর হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক আবদুল বাছির বলেন, আমি জানি না। আমার কাছে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here