খাদ্য নিয়ে শ্রমজীবী মানুষের পাশে ডাকসু সদস্য

করোনাভাইরাসের মহামারিতে শ্রমজীবী মানুষের পাশে দাঁড়ালেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) সদস্য তানভীর হাসান সৈকত।

মঙ্গলবার থেকে আজ পর্যন্ত প্রতিদিন ৫০ জন শ্রমজীবী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন ডাকসুর এ সদস্য। করোনা মহামারি যতদিন থাকবে এবং সহযোগিতা পাবে ততদিন মানুষের পাশে থাকতে চান ডাকসুর এ সদস্য।

এ বিষয়ে ডাকসু সদস্য তানভীর হাসান সৈকত স্টুডেন্ট জার্নালকে বলেন, দেশের এ ক্রান্তিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং একজন ছাত্রনেতা হিসেবে শ্রমজীবী মানুষের পাশে দাঁড়ানো আমি কর্তব্য মনে করছি। মহামারিতে তাদের অবস্থা ভয়াবহ হতে পারে সে অনুভূতি থেকে তাদের পাশে দাঁড়ানো।

তানভীর হাসান সৈকত আরও বলেন, কেউ যদি এটিকে শো-অফ মনে করে করুক। শ্রমিক বাঁচাও দেশ বাঁচাও। দেশের এই ক্লান্তিতে শ্রমজীবী মানুষের পাশে দাঁড়ানো অত্যন্ত জরুরি। কর্মহীন নিরুপায় নিম্নবিত্ত ৫০ টি পরিবারের পাশে প্রতিদিন আমি সৈকত খাবার নিয়ে ‘শো-অফ’ চালিয়ে যাবো ইনশাল্লাহ। আমাদের সকলের সম্মেলিত শো-অফে যদি কিছু শ্রমজীবী মানুষ খাবার পাই তাহলে মন্দ কিসে? দয়াকরে শো-অফের জন্য হলেও মানুষের পাশে দাঁড়ান, তা নাহলে এই মানুষগুলো না খেয়ে মারা যাবে। এদের জীবনেরও মূল্য আছে।

কাদের সহযোগিতায় তিনি এমন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তানভীর হাসান সৈকত বলেন, আমাকে আমার বন্ধুরা, দুই একটি সংগঠন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টাফরাসহ (মামারা) অনেকেই সহযোগিতা করছে। আমি সবার সহযোগিতার কারণেই এমন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি।

ডাকসুর পক্ষ থেকে সহযোগিতা পাচ্ছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, না এখনো আমি এভাবে চাইনি। মানুষের সহযোগিতায় চালিয়ে যাই। যদি প্রয়োজন হয় ডাকসু সভাপতি মাননীয় উপাচার্যের সাথে আমি এ বিষয়ে কথা বলব।

কতদিন চলবে এমন কার্যক্রম এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে এমন দুর্দিন যতদিন থাকবে এবং মানুষের সহযোগিতা পাবো ততদিন মানুষের পাশে থাকতে চাই। এটি আমার দায়িত্ব আমি তাদের জন্য এ কাজ চালিয়ে যেতে চাই।

ডাকসুর এ সদস্য স্টুডেন্ট জার্নালকে আরও জানান, আগামীকাল থেকে প্রতিদিন টিএসসি থেকে চাল, আলু, পেয়াজ প্যাকেট করে বিভিন্ন জায়গায় বিলি করা হবে।

এ কাজে সকলের আন্তরিক সহযোগিতা প্রত্যাশা করেছেন ডাকসু সদস্য তানভীর হাসান সৈকত।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here