মঙ্গলবার (০৩ ডিসেম্বর) ছাগল, ইঁদুর, মুরগি, শূকর আর কবুতর হত্যার মধ্য দিয়ে ‘গাধিমাই উৎসব’ পালন করে তারা। এর প্রায় পাঁচ বছর আগে নেপালের প্রাণী দাতব্য সংস্থাগুলো এই উৎসব নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিল।

সেখানে কয়েক হাজার মহিষ হত্যা করা হয় বলে জানা যায় নেপালের এক প্রাণী অধিকার কর্মীর থেকে। মঙ্গলবার ভোর থেকে ২০০ কসাই তাদের কাজ-কর্ম শুরু করার জন্য প্রস্তুতি নেয়। আর ২০১৪ সালের সর্বশেষ উৎসবে প্রায় দুই লাখ প্রাণী হত্যা করা হয়েছিল।

নেপালের এই বলিদান প্রথা শুরু হয় প্রায় আড়াইশ’ বছর আগে। তখন একজন পুরোহিত বলেছিলেন, তিনি স্বপ্ন দেখেছেন যে, শক্তির দেবী গাধিমাই তাকে বলেছেন, কারাগার থেকে তাকে মুক্ত করতে হলে রক্ত ঝরাতে হবে। এরপর থেকেই লাখো ভক্ত ভারত ও নেপাল থেকে নেপালের বারিয়ারপুরে গাধিমাই দেবীর মন্দিরে যান। তাদের কাছে এটা নিজেদের ইচ্ছা পূরণ করার একটি সুযোগ।

২০১৫ সালে হিউম্যান সোসাইটি ইন্টারন্যাশনাল এবং অ্যানিম্যাল ওয়েলফেয়ার নেটওয়ার্ক নেপাল বিজয় ঘোষণা করে জানায় যে, পশু বলিদান নেপালে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here