এখনই আফগানিস্তান ছাড়তে চায় না যুক্তরাষ্ট্র

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিংকেন বলেছেন, ‘আমেরিকান এবং ন্যাটো সৈন্যদের প্রত্যাহার করে নেয়া হলে আফগানিস্তান জুড়ে তালেবানের ব্যাপক সামরিক উত্থান হতে পারে।’ এ অজুহাতে তারা এখনই আফগানিস্তান না ছাড়ার প্রস্তাব দিয়েছে।

তালেবান এবং ট্রাম্প প্রশাসনের করা এক চুক্তি অনুযায়ী আগামী মাসের শেষ নাগাদ সব মার্কিন সৈন্য আফগানিস্তান ছেড়ে যাওয়ার কথা রয়েছে। এর আগেই আফগান প্রেসিডেন্টকে দেয়া এক চিঠিতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী তালেবানের নতুন উত্থানের শঙ্কার কথা জানিয়েছেন।

৯/১১ হামলার জবাবে ২০০১ সালে আফগানিস্তানে হামলা চালায় আমেরিকা। তখন তালেবানকে উৎখাতের লক্ষ্য নিয়ে তারা হামলা শুরু করে। অবশেষে যুদ্ধের কোনো সমাপ্তি ছাড়া ‘চুক্তি করে’ আফগানিস্তান ছাড়তে রাজি হয় আমেরিকা।

২০২০ সালে চুক্তি স্বাক্ষরিত হলেও চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাইডেন প্রশাসন জানায়, তারা সেই চুক্তি ‘রিভিউ’ করবে।

ওই চুক্তি অনুযায়ী মে মাসের ১ তারিখের আগে মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো বাহিনীর সব সদস্য আফগানিস্তান ছেড়ে যেতে হবে। এর বিনিময়ে তালেবান আফগানিস্তানে নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দেবে। কিন্তু এখন বাইডেন প্রশাসন বলছে, আফগানিস্তান ছাড়ার আগে তারা ‘তালেবানের ওয়াদার বাস্তবায়ন’ দেখতে চায়।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠির বরাত দিয়ে সংবাদ মাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, আমেরিকা এখন ৯০ দিনের ‘সংঘর্ষ বন্ধ’ দেখতে চায়। তারা এই শান্তি প্রক্রিয়া জাতিসংঘের তত্বাবধানে পর্যবেক্ষণ করবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here